1. haornews@gmail.com : admin :
বুধবার, ২৯ জুলাই ২০২০, ১১:৩৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

সুনামগঞ্জে ভূমি কর্মকর্তার উপর হামলাকারীকে ধরে পুলিশে দিল জনতা

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই, ২০২০, ৯.১৪ পিএম
  • ৫৮ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জ সদর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা কাজী শামছুল হুদা সোহেলের উপর মুখোশধারী হামলাকারীদলের প্রধান হত্যা, নারীনির্যতানসহ একাধিক মামলার আসামি ফারুক আহমদ মনোহরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে জনতা। বৃহষ্পতিবার বিকেলে স্থানীয় জনতা ছাতক থেকে তাকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। এর আগে হামলাকারীর সহযোগী শহরের তিন উঠতি সন্ত্রাসী ও একাধিক মামলার আসামিদেরও স্থানীয় জনতা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছিল।
গত ১০ জুন সকালে সুনামগঞ্জ শহরের কাজীর পয়েন্টে মুখোশ পড়ে সুনামগঞ্জ শহরের কয়েকজন উঠতি সন্ত্রাসীকে নিয়ে কাজী শামসুল হুদা সোহেলের উপর হামলা করে ফারুক। রড দিয়ে তাকে বেধড়ক পেটায়। মাথায় আঘাত করলে তিনি নিচে পড়ে গেলে তার উপর লোহার রড দিয়ে এলোপাথারি আক্রমণ করে তিন সহযোগিতার সহায়তায়। এসময় স্থানীয় জনতা মুখোশধারী হামলাকারী ফারুকের সহযোগী সুনামগঞ্জ শহরের একাধিক মামলার আসামি তিন তরুণকে গ্রেপ্তার করে পুলিশে দিয়েছিল। এ ঘটনার পর থেকেই পলাতক ছিল মুল হামলকারী। এ ঘটনায় অফিসের কোন দুর্নীতিবাজ চক্র জড়িত থাকতে পারে বলে অনেকেরই ধারণা।
জানা গেছে ছাতকের কাজিরহাটা গ্রামের মূল হামলাকারী ফারুক আহমদ মনোহর একটি দুর্নীতিবাজ চক্রের হয়ে ভ‚মি কর্মকর্তা কাজী শামসুল হুদা সোহেলকে প্রাণে হত্যা করতে গত ৯ জুন সুনামগঞ্জ শহরে এসে একটি আবাসিক হোটেলে অবস্থান নেয়। সে শহরের একাধিক মামলার আসামি আরপিন নগরের মহিবুর রহমানের ছেলে রবিন মিয়া (২০), একই গ্রামের শহিদ মিয়ার ছেলে মো. আকাশ (২২) ও একই গ্রামের শহিদুল হকের ছেলে নিহারুল হক রবিন (২২) কে নিয়ে বৈঠক করে। তাদেরকে হামলাকারীর সঙ্গে পাঠিয়ে দেয় উত্তর আরপিন নগরের জুহিন নামের আরেক যুবক। ১০ জুন সকালে কাজীর পয়েন্টেস্থ অফিসে যাওয়ার পথে মুখোশ পড়ে হামলা চালায় ফারুক। তাকে সহযোগিতা করে ওই তিন যুবক। এসময় ভ‚মি কর্মকর্তার চিৎকারে আশপাশের মানুষ এগিয়ে আসলে মূল হামলাকারী পালিয়ে যায়। সন্দেহজনক অবস্থায় তিন তরুণকে আটক করেন স্থানীয়রা। পরে তাদেরকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠায় পুলিশ। ওই দিনই পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মূল হামলাকারীকে সহযোগিতার কথা স্বীকার করে ঘটনায় জড়িত বলে পুলিশের কাছে জবানবন্দি দেয় তিন যুবক।
এ ঘটনায় ১১ জুন সুনামগঞ্জ থানায় ফারুককে প্রধান আসামি করে ৫ জনের নামোল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন আহত কর্মকর্তা কাজী শামসুল হুদা সোহেল। মামলার আসামি জুহিন এখনো পলাতক রয়েছে।
২ জুলাই বৃহষ্পতিবার বিকেলে ফারুক তার এলাকায় গেলে ক্ষুব্দ জনতা তাকে আটক করে ছাতক থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়। গ্রেপ্তারকৃত ফারুককে রিমাÐে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই হামলার মূল পরিকল্পনাকারীর তথ্য উদ্ধার সম্ভব বলে জানা যাবে বলে জেলা তহসিলদার সমিতির লোকজন।
ছাতক থানার ওসি মোস্তফা কামাল বলেন, স্থানীয় এলাকাবাসী ফারুক আহমদ মনোহরকে তার এলাকা থেকে ধরে আমাদের কাছে হস্থান্তর করেছেন। আমরা সুনামগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে হস্থান্তর করতে খবর দিয়েছি।
সদর থানার ওসি মো. সহিদুর রহমান বলেন, ভ‚মি কর্মকর্তার উপর কিছুদিন আগে মুখোশধারী হামলাকারী ফারুককে আজ আটক করেছে স্থানীয় জনতা। আমরা তাকে থানায় আনার জন্য পুলিশ পাঠিয়েছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!