1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
মধ্যনগরে শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা সুনামগঞ্জে শোকের দিনে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের গৃহনির্মাণ সহায়তা দিল প্রাথমিক শিক্ষা পরিবার সুনামগঞ্জে বিভিন্ন উপজেলায় জাতীয় শোক দিবস পালন শাল্লায় অবৈধ ড্রেজারে সরকারি ভূমি ভরাট করার অপরাধে ফেনী ভূষণকে অর্থদণ্ড মধ্যনগরে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য বিব্রতকর: হাইকোর্ট আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ টিমের কোচ সুনামগঞ্জের আবু নাসের দোয়ারায় পাগলা শিয়ালের কামড়ে নারী ও শিশুসহ আহত ১৫ সিবিইইউ ও সাস্টিয়ান সুনামগঞ্জ এর গৃহনির্মাণ সামগ্রী ও নগদ অর্থ বিতরণ সুনামগঞ্জের বিভিন্ন সীমান্তে ১৫ লক্ষ টাকার অবৈধ পণ্য জব্দ করেছে বিজিবি

আগুন! সচেতনতাই বাঁচাতে পারে জীবন

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ২২ জানুয়ারী, ২০১৮, ১২.১২ পিএম
  • ২৮৭ বার পড়া হয়েছে

ডা: এম. নূরুল ইসলাম:
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের পেছেনের ডরমিটরীর তৃতীয় তলার একটি রুমে আছি আজ প্রায় ১৯ মাস ধরে। রুমটি বার্ন ইউনিটমুখী আর খুব কাছাকাছি হওয়ায় প্রায় সব সময় বার্ন ইউনিটে আগুনে পুড়া রোগির করুণ চিৎকার-চেঁচামেচি শুনা যায়। বিশেষে করে আগুনে পুড়া শিশুদের যখন ড্রেসিং করানো হয় তখন তীব্র ব্যাথার যন্ত্রনায় তাদের করুণ চিৎকারে আশপাশ,আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে ওঠে। অনেক সময় স্বজনদের আহাজারিতে থেকে বুঝা যায়, যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পেয়ে কেউ বাড়ি ফিরছে লাশ হয়ে! শীতকালের সময়টাতে এসব ঘটনা ঘটতে থাকে সবচেয়ে বেশি করে এবং আক্রান্তদের অধিকাংশই শিশু ও বয়স্ক নারী।
প্রয়োজনো অপ্রয়োজনে হাসপাতালের ভিতরে ঢুকেছি কয়েকবার। বারবারই সৃষ্টিকর্তার নিকট প্রার্থনা করেছি এরকম দৃশ্য যেনো আবার আমাকে না দেখতে হয়! করুণ দৃশ্য, অসহনীয় দৃশ্য! আগুনে পুড়া রোগিদের এরকম যন্ত্রনাক্লিষ্ট কষ্টকর দৃশ্যের সাক্ষি ও চিকিৎসা সেবক হতে হয় বার্ন ইউনিটের সংশ্লিষ্ট সকল ডাক্তার, নার্স ও স্টাফদের। তাঁদের কাজটি নিঃসন্দেহে অনেক কঠিন আর মহত্তর তো অবশ্যই।
মানুষ কেনো আগুনে পুড়ে? কারন মূলত দুটি-১)প্রাকৃতিক কারন ও
২) মানব সৃষ্ট কারন।
প্রাকৃতিক কারনে কেউ বা কারো বাড়ি বা কোন এলাকা আগুনে পুড়ে গেলে তাতে কারো কিছু করার নেই। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে আমাদের দেশে প্রাকৃতিক কারনে আগুনে পুড়ে মানুষ মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটে খুবই কম। মানবসৃষ্ট কারনেই আমাদের দেশে আগুনে পুড়ে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে, আহত হচ্ছে এবং কেউ কেউ বেঁচে থাকছে ভয়াবহ মানসিক ও শারীরিক সমস্যা নিয়ে।
মানবসৃষ্ট কারনগুলোর মধ্যে আছে আগুন সম্পর্কে অজ্ঞতা, অসতর্কতা, অসচেতনতা, দূর্ঘটনা ও হিংসা, দ্বেষ, ঘৃণা যা মানুষ ইচ্ছে করলেই কমিয়ে আনতে পারে অর্থ্যাৎ আগুনে পুড়ে জীবনহানি কিংবা ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে নিজে বাঁচতে পারে, অন্যকেও বাঁচতে পারে। নিন্মোক্ত বিষয়গুলোর উপর একটু নজর দিলে আগুনের পুড়ার হাত থেকে নিজেকে বাঁচাতে অনেকটাই সহজ হবে।
১) আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে রান্না-বান্না ও ঘর- সংসার সামলাতে সবচেয়ে বেশি আগুনের কাছাকাছি থাকতে হয় নারীদের। সংঘত কারনে কোলের শিশু থেকে থেকে শুরু করে অন্যান্য শিশুরাও তার কাছাকাছিই থাকে। তাই আগুনে পুড়ে তাদের হতাহতের ঘটনাও বেশি হয়। চুলাতে আগুন জ্বালানো অবস্থায় খেয়াল রাখতে হবে যে আপনার শিশুটি যেনো আগুন থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকে।
২) রান্না-বান্নার সময় সহজে খুলে ফেলা যায় এমন পোষাক পরিধান করুন।
৩) শাড়ি ও ওড়না পরিধান করলে সাবধানে থাকুন। ওড়না ও শাড়ির আঁচল টাইট করে শরীরের সাথে পেঁচিয়ে নিন।
৪) রান্না করার শেষে চুলার আগুন নিভিয়ে ফেলুন।
৫)মাটির চুলার তিনপাশে তিনফুটের মতো উঁচু করে মাটির/সিমেন্টর দেয়াল বানিয়ে নিন।
৬)কেরোসিনের কুপি/ মোমবাতি জ্বালাতে সতর্ক হোন। তাদের নিরাপদ দূরত্বে রাখুন।

৭)ঢাকনা বা চিমনিযুক্ত বাতি ব্যবহার করুন।
৮) মশার কয়েল জ্বালানোর ক্ষেত্রে সতর্ক হোন। মশায় কয়েল নিরাপদ দূরত্বে রাখুন যেখান থেকে আগুন লাগবার সম্ভানা থাকবে না।
৯) গরম পানি ও গরম তরকারি, গরম চা সতর্কতার সাথে নাড়াচাড়া করুন। এসব শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।
১০) গোসলখানায় গরম পানির ডেকছি নিতে সাবধানী হোন। প্রয়োজনে বালতি ব্যবহার করুন।
১১) ঘরের ভিতর বিশেষ করে মশারীর ভিতর ধূমপান বর্জন করুন। বিড়ি/সিগারেট ধরানোর পর ম্যাচের কাটি হাতের মধ্যে নিভিয়ে তারপর ফেলবেন। সিগারেট/বিড়ি খাওয়ার পর অবশিষ্ট্য অংশ নিভিয়ে ফেলতে কখনোই ভুলবেন না।
১২) কেউ বিদ্যুতে শক খেলে খালি হাতে/পায়ে তাকে স্পর্শ করবেন না। সম্ভব হলে মেইন সূইচ অফ করে সাহায্য করুন।
১২) আগুন নিয়ে খেলবেন না।
১৩) আগুন পোয়ানো বর্জন করুন। বয়স্ক নারী ও শিশু যেনো কোন আগুনের কাছাকাছি না যায় সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখুন।
১৪) কেউ আগুনে আক্রান্ত হয়ে পুড়ে গেলে কালবিলম্ব না করে নিকটস্থ স্বাস্থ্যকেন্দ্র/চিকিৎসকের নিকট নিয়ে চলুন।
সভাই ভালো থাকুন, সুস্থ্য ও নিরাপদে থাকুন, আগুন থেকে নিজেকে ও পরিবারের সবাইকে হেফাজতে রাখুন।
লেখক: বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজে নাক কান ও গলা বিভাগে কর্মরত।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!