1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ০১:০৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
করোনায় একদিনে ভারতে মারা গেলেন ৫০ চিকিৎসক ভারতে সব রেকর্ড ভেঙে একদিনে ৪৩২৯ প্রাণহানি রোজিনাকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংবাদ সম্মেলন বয়কটের ঘোষণা দেশে বিশেষ অভিযান চালাবে ইন্টারপোল সভাপতি-সেক্রেটারি ছাড়াই শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করলো সুনামগঞ্জ আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে সুনামগঞ্জে যুবলীগের আলোচনা ধর্মপাশায় বাল্য বিয়ের অভিশাপ থেকে রক্ষা পেল ২ কিশোরী দিরাইয়ে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়ার জেরে স্বামীর আত্মহত্যা! প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোন অপশক্তিকেই ছাড় দেননি: এমপি মানিক তাহিরপুরে শশুর বাড়িতে এসে পানিতে ডুবে জামাইয়ের মৃত্যু

সুরঞ্জিতকে হারিয়ে বিলাপ করছে হাওর-ভাটির লাখো মানুষ

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭, ৩.৫৪ এএম
  • ৯৩ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার::
শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিম চন্দ্র দাশ বয়সে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ৩ বছরের বড়। আওয়ামী লীগের এই নেতা মুক্তিযোদ্ধা মহিনচন্দ্র জানান, এরকম মাটিগন্ধী নেতা জীবনে দেখিনি। তিনি এই হাওর এলাকার সাধারণ মানুষসহ মাঠ ঘাট এর ভাষা বুঝতেন। সাধারণ মানুষই তাকে ২৮ বছর বয়সে সংসদসদস্য করেছিল তার ক্যারিশমাটিক নেতৃত্বের কারণে। তার নেতৃত্বগুণের কারণেই নির্বাচনী এলাকার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ছিল ঐক্যবদ্ধ।
শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল হককে দেখা গেল সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মরদেহ শাল্লায় নিয়ে আসার পরপরই তিনি মাঠে জড়ো হতে। নেতার মরদেহ দেখে তিনি হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন। তিনি বলেন, এমন নেতা আর জীবনে পাবনা। আমরা জানি আমরা কাকে হারিয়েছি। নেতার শুন্যস্থান পূরণ হবেনা কোনদিন।
সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের বন্ধুপ্রতীম রাজনীতিবিদ ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রামানন্দ দাসও কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ওঠেন। তার চোখের জল মুছে বলতে লাগলেন, আমাদের ভাটিকে আলোকিত করেছিলেন সুরঞ্জিত। তিনি নেতা না হলে আমাদের অবহেলিত ভাটিকে কেউ চিনতোনা। তার কারণেই ভাটি জাতীয় রাজনীতিতে আলোচনায় ছিল। এমন নেতাকে পেয়ে আমরা ধন্য। তার স্মৃতি ধরে রাখার জন্য তিনি নেতাকর্মী ও শুভাকাঙ্খিদের আহ্বান জানান।
প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা রবীন্দ্র বৈষ্ণব বলেন, ‘আমরার চাইরধার এখন আন্ধাইর লাগের। আমরা বাত্তি নিভি গেছে। তিনি বলেন, নেতা অনেকই হয় কিন্ত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মতো নেতা কমই হয়। বলেই হাউমাউ করে কেদে ওঠেন তিনি।
সরুঞ্জিত সেনগুপ্তের ঘনিষ্ট সহচর ও দীর্ঘদিনের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট দিলীপ কুমার দাস বলেন, নেতার সঙ্গে আমার ৫০ বছরের সম্পর্ক। নেতা জ্ঞানেই সবসময় মেনেছি। হাওর এলাকার মানুষের জন্য বৃহত্তর কাজ করার লক্ষ্যেই নেতা বিভিন্ন সময়ে দেশের পক্ষের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলে যোগ দিয়েছিলেন। আমরাও নেতার সঙ্গে যোগ দিয়েছি। মানুষকে ধরে রাখা এমন নেতা জীবনে দেখিনি।
দিরাই পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র বিশ্বজিৎ রায় বলেন, আমি ছোটবেলা থেকেই নেতার ¯েœহধন্য ছিলাম। নেতার নেতৃত্বের প্রতি ছিল গভীর শ্রদ্ধা। এমন নেতার সান্নিধ্য পেয়ে আমরা গর্বিত। নেতার স্মৃতিরক্ষায় সবাইকে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!