1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১০:০২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
জনগণকে বিজয় উৎসর্গ করলেন মোহনপুরে বিজয়ী চেয়ারম্যান মঈন উল হক শান্তিগঞ্জে আ.লীগ ২, বিদ্রোহী ৩ ও বিএনপির স্বতন্ত্র ২জন চেয়ারম্যান জয়ী সুনামগঞ্জে আ.লীগের বিদ্রোহী ২জন, বিএনপির স্বতন্ত্র ৪জন, জাতীয় পার্টির দু’জন চেয়ারম্যান জয়ী সড়কে শিক্ষার্থীরা: দেখছেন গাড়ির লাইসেন্স ও কাগজপত্র ব্লুটুথযুক্ত মোটর সাইকেল নিবন্ধন পাবেনা মোহনপুর ইউনিয়নের ভোটারদের উদ্দেশ্যে বোবাদের চিঠি! জগন্নাথপুরে শিক্ষার্থীদের করোনা ভ্যাক্সিন প্রদান শুরু সুনামগঞ্জ সদর ও শান্তিগঞ্জের ১৭ ইউনিয়নে ভোটযুদ্ধ কাল ইউনিয়ন নির্বাচনে নৌকা নিয়ে বিজয়ী হতে চান সুনামগঞ্জের তিন বীর মুক্তিযোদ্ধা সুনামগঞ্জসহ সারাদেশে ভূমিকম্প

উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কঠোর আ’লীগ

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ২০ জুলাই, ২০১৯, ৫.০৭ এএম
  • ৩৭ বার পড়া হয়েছে

হাওর ডেস্ক ::
উপজেলা নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং যারা তাদের সমর্থন দিয়েছিলেন, তাদের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান নিয়েছে আওয়ামী লীগ। এদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে দলীয় পদ থেকে বাদ দেওয়াসহ দীর্ঘ মেয়াদী সাংগঠনিক পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা জানিয়েছেন, দলের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে দলীয় প্রার্থীর বিপরীতে প্রার্থী হওয়া ও এই বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়টিকে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের সর্বোচ্চ অপরাধ হিসেবে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। এটা করে তারা দলের বিরুদ্ধে ও দলের শীর্ষ পর্যায়ের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলেন। বিষয়টি দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের ভাবিয়ে তুলেছে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া না হলে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে থাকবে। যা দলের শৃঙ্খলার জন্য হুমকি হতে পারে। দলে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা এবং ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে কেউ জড়িত হতে না পারে, সে জন্য এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
চলতি বছর অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনিত দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নেন অনেকেই। এছাড়া দলের প্রতীক নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন, বিভিন্ন জায়াগায় তাদের আওয়ামী লীগের স্থানীয় সংসদ সদস্য ও দলীয় নেতারাও সমর্থন দেন। এদের ব্যাপারেও দলীয়ভাবে তদন্ত করে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।
দলের সাত বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদকদের এ ব্যাপারে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। এই তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। অভিযুক্তরা দলের যে পদে আছেন, তাদের সে পদ থেকে বাদ দেওয়া হতে পারে। পাশাপাশি যারা এমপি, তারা আগামীতে আর আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন না।
আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানায়, প্রায় দেড় শতাধিক নেতার বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে প্রায় ৬০ জন দলীয় এমপি। যাদের মধ্যে বর্তমান এবং সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীও রয়েছেন। এরা বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থন দিয়েছেন। দলীয় পদে থেকে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন, তাদের মধ্যে ৭৫ জন উপজেলার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে দলের সহযোগী সংগঠনের নেতাদের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার আগে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়ার প্রস্তুতি চলচ্ছে। শনিবার (২০ জুলাই) দলের সম্পাদকমণ্ডলীর যৌথসভায় নোটিশ পাঠানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হবে।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, দলে সিদ্ধান্ত হয়েছে, উপজেলায় যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন এবং দলের পদে থেকেও যারা নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিলেন, তাদের শোকজ করার। এদের উত্তর পাওয়ার পর দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় তাদের বিরুদ্ধে কী সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হবে। অভিযুক্ত যারা দলের পদে আছেন, তাদের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়াসহ সর্বোচ্চ সাংগঠনিক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।
এদিকে, উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীর বিষয়টি নিয়ে গত ১১ জুলাই আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সভায় আলোচনা হয়। সূত্র জানায়, এই সভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে বলেছেন, আপনারা নৌকা নিয়ে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন। আবার উপজেলা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। এটা তো অবশ্যই আমাকে দেখতে হবে। এটা যারা করেছেন, আগামীতে তারা নৌকার মনোনয়ন পাবেন না বলেও তিনি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।
এর পর দিন ১২ জুলাই দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী এবং নৌকার প্রার্থীর যারা বিরোধীতা করেছিলেন, তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।
শনিবার আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর যৌথসভা অনুষ্ঠিত হবে। এই সভায় কবে থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশ যাবে, সে ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
শুক্রবার (১৯ জুলাই) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, যেকোনো সাংগঠনিক ব্যবস্থা, যতো কঠিনই হোক না কেন, অভিযুক্তদের কারণ দর্শানোর সুযোগ দেবো। শুধু যে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হবে এবং ব্যবস্থা নেওয়া হবে, তা নয়। এদের পেছনে যারা সমর্থন দিয়েছেন, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সহযোগী সংগঠনের যারা বিদ্রোহী ছিলেন বা সহায়তা করেছেন, এসব সংগঠনকেও বলা হবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!