1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

ফসল রক্ষায় করণীয়: ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউশনের কাছে হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের প্রস্তাবনা

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১.৫৯ পিএম
  • ১৪০ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার
সুনমাগঞ্জের হাওরের বোরো ফসল রক্ষায় ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে দি ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি) এর কাছে ১২ দফা প্রস্তাবনা পাঠিয়েছে হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের আহবায়ক অ্যাড. বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু ও সদস্য সচিব বিন্দু তালুকদার স্বাক্ষরিত প্রস্তাবনা আইইবির ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী খন্দকার মঞ্জুর মোরশেদের কাছে ই-মেইলে পাঠানো হয়েছে।
হাওরের বোরো ফসল রক্ষায় ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে প্রস্তাবনায় উল্লেখ করা হয়েছে, সুনামগঞ্জে হাওরের বোরো ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠন অবশ্যই ২০ নভেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে। ঠিকাদার কিংবা পিআইসির কাজ অবশ্যই ১৬ ডিসেম্বর শুরু করতে হবে। যদি কেউ এতে ব্যর্থ হন তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ও আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। পিআইসি গঠন ও বাতিল করার প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক ক্ষমতা জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকে দিতে হবে। প্রকল্পের অর্থ ছাড় ও উপজেলা তদারকি কমিটিতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলীকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনকে প্রতিটি বাঁধের কাজে সম্পৃক্ত করতে হবে। এবং সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও পিআইসিকে কাজের জন্য উপজেলা প্রশাসনের কাছে জবাবদিহির ব্যবস্থা রাখতে হবে। পিআইসিতে সংসদ সদস্যের প্রতিনিধি তিনজনের বদলে একজন রাখতে হবে। স্থানীয় কৃষক (একেবারে বাঁধের পাশের বাসিন্দা) একজন, উপজেলা প্রশাসনের প্রতিনিধি একজন রাখতে হবে। পিআইসির সদস্যরা সভা করে যোগ্য একজনকে সভাপতি মনোনীত করবেন। আগে থেকে সভাপতি নির্ধারন করা যাবে না। বাঁধের কাজে অনিয়ম, অবহেলা, গাফিলতির অভিযোগে পিআইসি বাতিল, বিল উত্তোলণ বন্ধের ক্ষমতা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দিতে হবে। কাজ শুরুর দিন থেকেই সংশ্লিষ্ট বাঁধের পাশে পিআইসির সভাপতি/সম্পাদকের নাম-ঠিকানা, প্রকল্প বরাদ্দ, কাজের সময়সীমা উল্লেখ করে সাইনবোর্ড টানাতে হবে। অবশ্যই ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সকল বাঁধের কাজ শেষ করতে হবে। কোনো অজুহাতেই সময় বৃদ্ধি করা যাবে না। যদি কেউ যথা সময়ে কাজ শেষ না করে তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রতিটি কাজের পিআইসি ও ঠিকাদারদের নাম ঠিকানা, যোগাযোগের জন্য মোবাইল নম্বর প্রকাশ করতে হবে। বাঁধ নির্মাণে দরপত্র ও পিআইসির সকল কাজে বাংলা ভাষার ব্যবহার চালু করতে হবে। সকল দরপত্র, পিআইসির কাজ এবং কাজের বরাদ্দ স্থানীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় প্রকাশ করতে হবে। যাতে এলাকার লোকজন কাজ ও বরাদ্দ সম্পর্কে জানতে পারেন। ঝুঁকিপূর্ন বাঁধের কাজে বাঁশ, বস্তা, চাটাই এর ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। বাঁধের পরিমানমত ঢালু রাখতে হবে। কোন অবস্থাতেই বাঁধের গোড়া বা নিচ থেকে মাটি তুলা যাবে না। বাঁধ নির্মাণ পরিকল্পনা গ্রহণ, বাঁধ এবং হাওর এলাকা জরিপকালে স্থানীয় বাসিন্দা ও জমির মালিক (কৃষকদের) মতামত ও পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে। স্থানীয়দের মতামতকে বেশী করে গুরুত্ব দিয়ে সকল পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। এর আগে এই প্রস্তাবনাটি গত ৩১ আগস্ট জেলা প্রশাসকের কাছে প্রদান করে হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন।
উল্লেখ্য, গত ২৬ আগস্ট দি ইঞ্জিনিয়ার্স অব ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (আইইবি) এর পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল সুনামগঞ্জের কয়েকটি হাওর পরিদর্শন করেন। পরে বোরো ফসলহানি রোধে ভবিষ্যত করনীয় সম্পর্কে হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের সাথে মতবিনিময় করেন।
সভায় বক্তব্য রাখেন আইইবি’র পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দলের প্রধান আইইবি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী খন্দকার মঞ্জুর মুর্শেদ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এর অধ্যাপক আব্দুল মতিন, আইইবির কাউন্সিল ল মেম্বার অধ্যাপক মাহতাব উদ্দিন, ড. প্রকৌশলী লুৎফুর রহমান ও প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান।
আইইবি’র প্রতিনিধি দলের প্রকৌশলীগণ ওই দিনের মতবিনিময় সভায় আইইবির প্রতিনিধিদল হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের কাছে কিছু প্রস্তাবনা দেয়ার অনুরোধ করেন।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!