1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০৪:২১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম রজনী লাইলাতুল কদর।। আহসান হাবিব শাল্লার নোয়াগাওয়ে সাম্প্রদায়িক হামলা: এসপিসহ ১১ জনের বদলির সুপারিশ দোয়ারায় নেশা দ্রব্য খাইয়ে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ, আটক তিন লন্ডনের সেভেন কিংস ওয়ার্ডে পুনঃনির্বাচন: কাউন্সিলর পদে বিজয়ী সিলেটের পুষ্পিতা সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত খায়রুল হুদা চপল করোনাকে জৈব অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের পরিকল্পনা ছিল চীনের? সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন দুটি কিডনিই নষ্ট দোয়ারার জসীম উদ্দীনের : অর্থাভাবে চিকিৎসা ব্যাহত তাহিরপুরে গ্রাম পুলিশ হত্যায় দুজন আটক জামালগঞ্জে আমার বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ফ্রী মাস্ক বিতরণ

তাবলিগ জামাত দুই ভাগ করার নেপথ্যে হেফাজতের হাত ছিল: ডিবি

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ৩ মে, ২০২১, ৭.৪৭ পিএম
  • ১০ বার পড়া হয়েছে

হাওর ডেস্ক::
তাবলিগ জামাতকে দুই ভাগ করার নেপথ্যেও হেফাজত নেতাদের হাত ছিল বলে রিমান্ডে থাকা নেতারা পুলিশকে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন।

সোমবার (৩ মে) দুপুরে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার মাহবুবুল আলম এ তথ্য জানিয়েছেন। রমজানকে সামনে রেখে দেশজুড়ে হেফাজতের বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা ছিল বলেও জানান তিনি।
ডিবির এ যুগ্ম কমিশনার বলেন, রমজান মাসে বদরের যুদ্ধ হয়েছিল। আরেকটি বদর যুদ্ধের ডাক দিয়েছিল হেফাজত। ২৬ মার্চে শুরু হওয়া সহিংসতা রমজান পর্যন্ত টেনে আনার পরিকল্পনা ছিল তাদের।

২৬ মার্চ বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরোধিতা করে বিক্ষোভ করে হেফাজতের নেতাকর্মীরা। পরে তাণ্ডব ছড়িয়ে পড়ে কয়েকটি জেলায়।

এ ঘটনায় হওয়া মামলায় এখন পর্যন্ত ৩০ জনেরও বেশি হেফাজতের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির কেন্দ্রীয় নেতাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ পেয়েছে সহিংসতার মূল কারণ।

এসব তথ্য তুলে ধরে মাহবুবুল আলম জানান, চলতি রমজানেই দেশে একটি অরাজক পরিস্থিতি তৈরির নীলনকশায় মেতেছিল হেফাজতের নেতারা। দেশ-বিদেশ থেকে মাদ্রাসায় আসা অনুদানের টাকা সাম্প্রতিক সহিংসতায় খরচ করা হয়েছিল।

এর আগে মামুনুল হক ও তার সহযোগীরা মোহাম্মদপুর এলাকায় তাবলিগ জামাতের সাদপন্থীদের ওপর হামলার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

২০২০ সালের ৬ মার্চ সেখানে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায়ই রিমান্ডে আছেন মামুনুল। মামলার বাদী জি এম আলমগীর শাহিন সাদপন্থী। ঘটনার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ জব্দ করেছে পুলিশ।

সেখানে আসামি ওমর, ওসমান, শহিদ, আনিস ও জহিরের মসজিদে ঢুকে হামলা চালানোর প্রমাণ মিলেছে। তারা সবাই মামুনুল হকের ঘনিষ্ঠ। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে মামুনুল সাদপন্থীদের বিতাড়িত করার কথা স্বীকার করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!