1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১১:৪২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

মৌলভী বাজার নাসিরপুর জঙ্গি আস্তানায় ৮ জঙ্গির লাশ

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ, ২০১৭, ৫.১৫ পিএম
  • ৮২ বার পড়া হয়েছে

অনলাইন ডেক্স::
মৌলভীবাজারের নাসিরপুরের জঙ্গি আস্তানায় ৭ থেক ৮টি মৃতদেহ রয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম। ওই জঙ্গি আস্তানাটিতে গতকাল বুধবার থেকে আজ বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা শেষে বিকেলে সিটিটিসি আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ মন্তব্য করেন তিনি। সিটিটিসি’র অঙ্গভুক্ত সোয়াট টিম এ অভিযান পরিচালনা করে।
মনিরুল ব্রিফিং এ বলেন, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে মৌলভীবাজার পুলিশ নাসিরপুরের ফতেপুরের জঙ্গি আস্তানাটি ঘেরাও করে রাখে। গতকাল বুধবার তারা সেখানে পৌঁছায়। ঘটনাস্থলে আমিসহ সোয়াট ও বোম্ব ডিজপোজাল ইউনিটের ডিসি এখানে উপস্থিত রয়েছি। গতকাল সোয়াট আসার পরে অভিযানের গুরুত্ব ও যে ধরনের বিস্ফোরকের ভান্ডার সেটি বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এতে সিদ্ধান্ত ছিল, ট্যাকটিকাল অপারেশন সোয়াট টিম করবে। আর এপিবিএন, কাউন্টার টেররিজমের অন্যান্যরা সাপোর্টিভ জায়গায় কাজ করবে। এরপর জঙ্গিরা ১২টা বিস্ফোরণ ঘটায়। সোয়াট বুধবার বিকেলে অভিযান শুরুর আগে মাইকের সাহায্যে আত্মসমর্পণের জন্য তাদের বারবার অনুরোধ জানায়। এটা আশেপাশের মানুষও শুনেছেন। আর ওই সময়টাতেই তাদের পক্ষ থেকে প্রচ- বিস্ফোরণ শুরু হয়।
মনিরুল আরও জানান, কিছুক্ষণ আগে (বৃহস্পতিবার দুপুরে) বাড়িটিতে প্রবেশ সম্ভব হয়। বাড়িটিতে গ্রেনেড ও শক্তিশালী বোমা ছড়ানো ছিটানো ছিল। জঙ্গিরা শক্তিশালী বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। কাল (বুধবার) সোয়াট অভিযান শুরু করলে পালানোর পথ নাই দেখে সম্ভবত বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ওরা সপরিবারে আত্মহনন করেছে।
তিনি বলেন, সেখানে সাত আটটি ডেডবডি (মৃতদেহ) হতে পারে। আপনারা চিত্র ধারণ করলেও তা প্রচার করতে পারবেন না এতটাই বীভৎস হয়ে গেছে দেহগুলো।
মনিরুল আরও জানান, আমরা সূত্র ধরে অনুসন্ধান করছিলাম বলে নিশ্চিত হয়েই বলতে পারি, নব্য জেএমবি সদস্যরাই এ বাড়িটিতে আত্মগোপন করেছিল।
ড্রোনের ব্যবহার প্রসঙ্গে সিটিটিসি’র প্রধান বলেন, ঢাকা থেকে ড্রোন এনে বাড়িটির ভেতরের ছবি তোলা হয়েছে। এই ছবি দেখে প্রবেশ দ্বারসহ স্ট্র্যাটেজিক পয়েন্টে যেসব বোমা ও গ্রেনেড জঙ্গিরা রেখেছিল সেগুলো নিষ্ক্রিয় করা সম্ভব হয়েছে।
এর আগে জঙ্গিদের ব্যবহৃত বিস্ফোরক দ্রব্যের সঙ্গে নাসিরপুরে পাওয়া বিস্ফোরকের সাদৃশ্য রয়েছে জানিয়ে মনিরুল বলেন, সীতাকু-ের অভিযানে যে ধরনের আইইডি (ইম্প্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস) পাওয়া গিয়েছিল, এখানকার আইইডিগুলোও একইরকম। এছাড়া, এই অভিযানে অবিস্ফোরিত যে বোমা পাওয়া গিয়েছে, সেগুলোর সঙ্গে বিমানবন্দরের ঘটনায় পাওয়া বোমার মিল রয়েছে।’

জঙ্গি আস্তানায় নিহত জঙ্গিদের মধ্যে কয়জন পুরুষ ও কয়জন নারী, তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘নিহতদের মধ্যে কয়জন পুরুষ বা কয়জন নারী, তা বলা যাচ্ছে না। কারণ নিহত জঙ্গিদের শরীর ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে।’

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!