1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০৬:১৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
৭২ ঘণ্টার মধ্যে দেশের সব অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধের নির্দেশ আওয়ামী লীগ রাজপথে প্রস্তুত : সেতুমন্ত্রী সুনামগঞ্জ সরকারি গণগ্রন্থাগারে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ তাপমাত্রা কমতে পারে, বৃষ্টির সম্ভাবনা কৃষিতে আরও সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ শান্তিগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হলেন শাহ্ মো. কামরুজ্জামান আগামীকাল জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের ১২৩ তম জন্মবার্ষিকী ১৬ দেশে মাংকিপক্স শনাক্ত গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে বিএনপি’র বক্তব্য নতুন ষড়যন্ত্রের বহির্প্রকাশ : সেতুমন্ত্রী

ধামাইল গানে গানে নারী সংগীত রচয়িতাকে প্রতাপরঞ্জনকে স্মরণ

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ২৮ মার্চ, ২০২২, ৬.৪৮ পিএম
  • ৩৮ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার::
হাওরের এক নিভৃত পল্লীর লোককবি প্রতাপ রঞ্জন তালুকদার। নারীসংগীত রচয়িতা হিসেবে তিনি পরিচিত। হাওরের নারীদের মধ্যে তাঁর ধামাইল গান ব্যাপক জনপ্রিয়। বিশেষ করে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পারিবারিক, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে তিনি অবধারিত। গ্রামীণ নারীরা বাঁচিয়ে রেখেছেন এবং রাখছেন এই ধামাইল রচয়িতাকে। দিন-কে-দিন তিনি প্রোজ্জ্বল হয়ে উঠছেন।
হতদরিদ্র এই শিল্পী হাজারের অধিক ধামাইল রচনা করেছেন। মারা গেছেন ২০০৯ সনে বিনা চিকিৎসায়। তাঁর সব গান এখনো সংরক্ষিত হয়নি। পরিবারের মাথাগোঁজার ঠাঁইও রেখে যেতে পারেননি তিনি। পরিবারের বাস্তুসংস্থানের পাশাপাশি তার ধামাইল গানগুলোও সংরক্ষিত হওয়া জরুরি। না হলে এই গুণীর অমর সৃষ্টি হারিয়ে যাবে।
ধামাইল রচয়িতা লোককবি প্রতাপরঞ্জন স্মরণে দিনব্যাপী ধামাইল উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার (২৭ মার্চ) শান্তিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের টাইলা গ্রামে কবির নিজ গ্রামে এই ধামাইল উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। দিনব্যাপী এই ধামাইল উৎসবে ৭ টি ধামাইলের দল অংশগ্রহণ করে।
‘ডুবিলে যমুনার জলে অন্তরে অন্তরে জ¦লে, মরণ ছাড়া অন্য উপায় নাই, ভাবিয়া কয় প্রতাপরঞ্জন সে আগুনে পুড়েনা বন, মরমে মরমে দহে প্রাণ’ কবির এই গানের লাইনকে ধারণ করে হয়ে গেল দিনব্যাপী ধামাইল উৎসব। দিনব্যাপী এই উৎসবে বিভিন্ন উপজেলা থেকে ৭টি ধামাইলের দল অংশগ্রহণ করে। আয়োজক ও সংশ্লিষ্টরা বলছেন, হাজারেও উপরে গানের রচয়িতা প্রতাপরঞ্জনের সৃষ্টি হারিয়ে যাচ্ছে। তার এই সৃষ্টিকর্ম সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে সরকারের পৃষ্টপোষকতা প্রয়োজন।
প্রতাপরঞ্জন ছিলেন একজন দিনমজুর। ক্ষেতে খামারে সারাদিন পরিশ্রম করে রাতে গান লিখতেন। ৪ ছেলে মেয়ের অভাবের সংসারে টানাপোড়েন থাকলেও তাঁর লিখায় এর প্রভাব পড়তে দেন নি। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত লিখে গেছেন ধামাইল গান। তবে এখনও তার অমর সৃষ্টিকর্ম চর্চার অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে।
ধামাইল সংগীত শিল্পী গীতা রানী দাস বললেন, ধামাইল নাচে প্রতাপরঞ্জনের গান ছাড়া জমে না। আমরা সবচেয়ে প্রতাপবান্ধা গান করি। আমরা তাকে নারী সংগীত রচয়িতা বলি। আমরা চাই তার গানগুলি সবার মাঝে ছড়িয়ে দেয়া হোক।
প্রতাপরঞ্জনের বড় ছেলে শশ^াস তালুকদার বললেন, রাধারমণের পরেই আমার বাবার অবস্থান। তিনি হাওরে ধান কেটেছেন, অন্যের জমিতে কাজ করেছেন। রাতে যখন শুতেন তখন খাতা কলম নিয়ে গান লিখতেন। আমরা মাঝ রাতে উঠে দেখতাম বাবা লিখতেছেন। আমরা বলতাম বাবা রাত হয়েছে ঘুমিয়ে পড়ো। কিন্তু বাবা ঘুমাতেন না। শুকনা মৌসুমে কাজ নেই। তখন ইট কলে গেছেন কাজ করতে। গুনগুনিয়ে গান লিখেছেন। বর্ষা মৌসুমে নিজের বই নিয়ে বিভিন্ন জেলায় জেলায় গিয়ে বিক্রি করেছেন।
তিনি বলেন, আমাদের দাবি আজকের ধামাইল উৎসব যেনো প্রতিবছরেই হয়। বাবার স্বপ্ন যেনো বাস্তবায়ন হয়। কিছুদিন আগেও দেখেছি ইউটিউবে বাবার একটি জনপ্রিয় গান রাধারমনের বলে প্রচার হচ্ছে। বাবার গানের সংরক্ষণ মানুষের মাঝে প্রচার নেই। এজন্য এরকমটি হচ্ছে। বাবার সৃষ্টি সংরক্ষণের সরকারি সহযোগিতা আশা করি আমরা।
ধামাইল উৎসবের আয়োজক মো. লিটন মিয়া বললেন, ধামাইল উৎসব প্রতাপরঞ্জন করতেন। আমরা তখন খুব ছোট ছিলাম। এরপরে এই ধামাইল উৎসব হারিয়ে গেছে। আমাদের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে আজকে আমরা ধামাইল উৎসবের আয়োজন করেছি। প্রতাপরঞ্জন তালুকদার অনেক বড় একজন গীতিকার। নিজে দিনমজুরের কাজ করেও তাঁর জীবনদশায় অসংখ্য গান রচনা করে গেছেন। উনার নিজ বাড়িতে স্মৃতি রক্ষাতে স্মৃতি জাদুঘর নির্মাণ করবে সরকার এই দাবি আমাদের।
প্রতাপরঞ্জন স্মৃতি পরিষদের সভাপতি জয়ন্ত সরকার বললেন, প্রতাপরঞ্জন তালুকদার এই অজপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছেন। জীবনে দরিদ্রের সঙ্গে লড়াই করেও আমাদের জন্য সৃষ্টি করেগেছেন ধামাইল গান। রাতের বেলা কৌপি বাতি জ¦ালিয়ে অসংখ্য নারী সংগীত রচনা করেছেন। এককভাবে এতো ধামাইল আর কেউ লিখেনি। ধামাইলে রাধারমনের পরেই প্রতাপরঞ্জনের অবস্থান। আমরা চাই প্রতাপরঞ্জনের সৃষ্টি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় পৃষ্টপোষকতা ও সংরক্ষণ করবে।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজ¦ী মো. আবুল কালাম বলেন, অজপাড়া গ্রামের প্রতাপরঞ্জন তালুকদার আমাদের গর্ব। দরিদ্র ও সাধারণ একজন মানুষ হয়েও সমাজ ও জাতির জন্য তাঁর সৃষ্টি রেখে গেছেন। এই সৃষ্টি প্রচারের অভাবে মানুষ জানে না প্রতাপরঞ্জন সম্পর্কে। তার কাজকর্ম প্রচার ও প্রসারে সরকার উদ্যোগ নেবে আশা করি। এজন্য উনার গ্রামের রাস্তা তাঁর নামে নামকরণের দাবি জানাই।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!