1. haornews@gmail.com : admin :
  2. editor@haor24.net : Haor 24 : Haor 24
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সরকারের আলোচনার প্রস্তাব, গঠিত হয়েছে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি সুনামগঞ্জে কোটা সংস্কার আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক শিবির সভাপতি সুমেলসসহ তিন শিবির নেতা গ্রেপ্তার ছাত্রলীগকে স ন্ত্রা সী সংগঠন হিসেবে বিবেচনার প্রশ্নে যা বলছে যুক্তরাষ্ট্র সুনামগঞ্জে কিশোর গ্যাং ও অ প রা ধ প্র তি রো ধ বিষয়ে নিয়ে আলোচনা সভা সিলেটেও স্বেচ্ছায় পদ ছাড়ছেন ছাত্রলীগ নেতারা সিলেটের বন্যা : যুক্তরাজ্য সহায়তা দিচ্ছে ৪ কোটি টাকা কোটা: ‘ও ভাইও হামাক এনা বোন কয়া ডাকো রে’, সাঈদের বোনের আহাকারি বিকল্প নৌপথে সেন্ট মার্টিনের যাত্রীবাহী ট্রলারে আবারও গুলি বর্ষণ বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা দেয় কোটা আন্দোলনকারীরা শনির আখড়ায় পুলিশের ওপর হামলা ঘিরে সংঘাত সৃষ্টি, শিশুসহ গুলিবিদ্ধ ছয়জন

বেশিদিন বেঁচে থাকার রহস্য ফাঁস করলেন বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২০, ১০.০৯ পিএম
  • ২৭১ বার পড়া হয়েছে

হাওর ডেস্ক::
জন্মিলে মরিতে হইবে। এটাই চিরন্তন সত্য। তবে কিছু মানুষ আছেন যারা মৃত্যুকে জয় করেননি বটে, কিন্তু নিজের বয়স দিয়ে অন্যকে চমকে দেওয়ার সাধ্য রাখেন। তেমনই এক ব্যক্তি গ্রিনিং চিতেস্তু ওয়াতানাবে। যার বর্তমান বয়স ১১২ বছর ৩৪৪ দিন। বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক পুরুষ মানুষ তিনিই।

যুবক বয়সে পেশায় একজন কৃষক ছিলেন তিনি। নিজের দীর্ঘায়ুর রহস্য হিসেবে তিনি জানিয়েছেন, ‘কখনও রাগ করা চলবে না, আর সর্বদা মুখে হাসি রাখতে হবে।’ ১৯০৭ সালে উত্তর জাপানের নিইগাতা শহরে জন্মগ্রহণ করেন গ্রিনিং চিতেস্তু ওয়াতানাবে। তিনি গ্রিনিস ওয়ার্ল্ডের তরফ থেকে সার্টিফিকেটও পেয়েছেন।

জাপানের এই বয়স্ক ব্যক্তি জানিয়েছেন, দাঁত না থাকলেও পুডিং এবং ক্রিম পাফ খেতে পছন্দ করেন তিনি। কারণ এই ধরণের খাবারগুলি দাঁত দিয়ে চাবাতে হয় না। এর আগে যে ব্যক্তি বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ছিলেন, তার নাম মাসাজো নোনাকা। তিনিও জাপানেরই নাগরিক ছিলেন। ২০১৯ সালে ১১৩ বছরে মৃত্যু হয় তার।

গ্রিনিং চিতেস্তু ওয়াতানাবে সম্পর্কে বলতে গিয়ে তার বড় ছেলের পুত্রবধূ জানিয়েছেন, ওয়াতানাবেকে তিনি কখনও রাগতে দেখেননি। পাশাপাশি তিনি যথেষ্ট যত্নশীলও।

অন্যদিকে ওয়াতানাবে নিজের সম্পর্কে বলেছেন, ‘আমি মনে করি, এক ছাদের নীচে একটি বড় পরিবারের সাথে বসবাস করছি, এখানে নাতি-নাতনিরা আমার মুখের হাসি বাঁচিয়ে রেখছে।’ তার এই কথা থেকেই পরিষ্কার তিনি তার নাতি-নাতনিদের কতটা ভালোবাসেন।

Print Friendly, PDF & Email

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazarhaor24net
© All rights reserved © 2019-2024 haor24.net
Theme Download From ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!